৩ কার্তিক ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৭ , ৫:৫০ পূর্বাহ্ণ
bangla fonts
facebook twitter google plus rss
Somoyer Narayanganj
organic sweets
Laisfita

‘ছামাক ছাল্লুতে’ ভাঙ্গলো মিলনমেলা, বন্ধু ভাল থাকিস আবার দেখা হবে


২৭ মার্চ ২০১৬ রবিবার, ১০:৪৭  পিএম

নিউজ নারায়ণগঞ্জ


‘ছামাক ছাল্লুতে’ ভাঙ্গলো মিলনমেলা, বন্ধু ভাল থাকিস আবার দেখা হবে

 চৈত্রের খরতাপে ক্ষণে ক্ষণে গলা শুকিয়ে যাচ্ছিল অনেকেরই। মাথার উপরের সূর্যটা যেন নেমে গিয়েছিল কয়েক ধাপ। তবে প্রাণের মিলনমেলায় সেসব কিছুই তুচ্ছ মনে হচ্ছিল। পড়ন্ত বিকেলে যখন ছামাক ছাল্লু গানের তালে তালে সবুজ ও দীপঙ্কর যখন নাচছিল তখন উচ্ছাসে ক্লান্তি দূর হয়ে গিয়েছিল অনেকেরই।

ঐতিহ্যের নিরব সাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে থাকা শহরের কিল্লারপুলের হাজীগঞ্জ কেল্লার মাঠে শনিবার ২৬ মার্চ দিনব্যাপী নারায়ণগঞ্জ বার একাডেমী স্কুলের ১৯৯৫ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের ২১ বছর পূর্তি উৎসবে ছিল এমন চিত্র।

গেল বছরের একইদিনে ২০ বছর পূর্তি উৎসবের পরে দীর্ঘদিনের সহপাঠীরা আবারো অপেক্ষায় ছিল সেই মাহেন্দ্রক্ষণের। সকালে মাঠে জড়ো হওয়ার পর থেকেই লোগো সম্বলিত একরঙ্গের টিশার্ট পরিধান করে শুরু হয় সেলফি তোলার প্রতিযোগিতা। কেল্লার ভেতরে একেকজন যখন প্রবেশ করছিল তখন সবাই ডাকচিৎকার দিয়ে হৈ হুল্লোর করছিল। আলিঙ্গনের মাধ্যমে বরণ করে নিচ্ছিল একজন আরেকজনকে। নব্বই থেকে পচানব্বই এই ৫ বছর ঘন্টার পর ঘন্টা সময় পার করা, দল বেধে স্কুল পালানো, খেলাধুলা, খুনসুটিতে অনেকেই হয়ে পড়েছিল আত্মার আত্মীয়। গত বছরে উপস্থিত থাকা কয়েকজন এবছর কর্মব্যস্ততার কারণে আসতে না পারলেও গত বছরের উৎসব মিস করা কয়েকজন যোগ দেয়। স্মৃতির অতলে হারিয়ে যাওয়া সেই চিরচেনা মুখগুলোকে আবার নতুন রূপে চিনে নিয়েছে প্রত্যেকে। জম্পেশ আড্ডায় স্মৃতিচারণ চলে স্কুলের সেই মধুময় দিনগুলোর। যাতে সমবেত হয়েছিল চিকিৎসক, প্রকৌশলী, শিক্ষক, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক, চাকুরীজীবীসহ নানা পেশায় নিয়োজিত সহপাঠীরা। অনেকের সঙ্গে অনেকের দেখা হয় দীর্ঘদিন দীর্ঘবছর পর। সেই পুরানো অনেক স্মৃতি রোমন্থন করতে গিয়ে অনেকেই হয়ে উঠে আবেগে আপ্লুত।

নাস্তার পর্ব শেষ করে শুরু হয় ক্রিকেট উৎসব। যাতে ৪টি টিমে নক আউট পদ্ধতিতে শুরু হয় ৭ ওভারের ম্যাচ। প্রতিটি চার ছক্কার সঙ্গে সঙ্গে করতালিতে মুখরিত হয়ে উঠছিল কেল্লার মাঠটি। এর সঙ্গে সিদ্দিক ওরফে লিটনের অসংলগ্ন ধারাভাষ্য আনন্দ যুগিয়েছে বন্ধুদের।

টুর্নামেন্টের ফাইনাল ম্যাচটি হয় সোহাগ বাংলালিংক ও শোয়েব পিএইচপি’র মধ্যে। যা আনন্দ যুগিয়েছে সকলের মধ্যে। ফাইনাল ম্যাচটি লো স্কোরিং ম্যাচ হলেও শেষ ৬ বলে ১৭ রান দরকার ছিল শোয়েব পিএইচপি গ্রুপের জন্য। যার মধ্যে পিএইচপি গ্রুপের অলরাউন্ডার ডা. দেবরাজ মালাকার ৬ বলে ১৬ রান তুলে ম্যাচ টাই করে ফেলে। যার ফলে খেলা গড়ায় সুপার ওভারে। তবে সুপার ওভারে শষ হাসি হাসে সোহাগ বাংলালিংক।   

সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপস্থিত ৮০ জন সহপাঠীর জম্মেশ আড্ডার ফাঁকে ফাঁকে আয়োজন ছিল শসা, গাজর, চা।

মধ্যা‎হ্ন ভোজের পর সম্মিলিতভাবে চলে ফটোসেশন। এরপর চলে ছামাক ছাল্লু গানের তালে তালে সবুজ ও দীপঙ্করের নাচ। যা ফেসবুকেও বেশ আলোড়ন তোলে। বিকেল অবধি চলতে থাকে আড্ডা সঙ্গে ছবি তোলা।

সফল পুর্নমিলনী অনুষ্ঠানের আয়োজনের জন্য সোহাগ, শরীফ সুমন, রাশেদ, জ্যাক ফারুক, ইমরান সুমনসহ অন্যদের সাধুবাদ জানান সকলে। এবার টিশার্টে স্পন্সর করে চাষাঢ়া সমবায় মার্কেটের আর কে কম্পিউটারর মালিক বন্ধু কামাল হোসেন কালিম। কোক স্পন্সর করে বন্ধু রিয়াজ। এছাড়া শোয়েব ক্রিকেট বল ও জ্যাক ফারুক টেপ স্পন্সর করে। শসা, গাজর ও চা স্পন্সর করে বন্ধু হাসিব ও লিটন। সাউন্ড সিস্টেম স্পন্সর করে বন্ধু রাসেল ওরফে টোটনা রাসেল। তাদেরকে সাধুবাদ জানান সকলে।

বন্ধুদের যারা রেজিষ্ট্রেশন করেছিল তাদের সকলের জন্য উপহার হিসেবে ছিল একটি করে মগ।

গত বছরে ন্যায় চলতি বছরের রমজান মাসের দ্বিতীয় শুক্রবার ইফতার পার্টির আয়োজনের আগাম ঘোষণাও দেয়া হয়। এছাড়া আগামী বছর ২২তম পূর্নমিলনীতে নারায়ণগঞ্জের বাহিরে কোথাও প্রাণের মিলনমেলা করারও আগাম ঘোষণা দেয়া হয়।

পড়ন্ত বিকেলে আড্ডাস্থল ত্যাগের পূর্বে সবার মুখে ছিল একই উচ্চারণ ‘বন্ধু ভালো থাকিস আবার দেখা হবে’।

রেজিষ্ট্রেশন করা যারা উপস্থিত হয়েছিলেন পুর্নমিলনীতে তারা হলেন, নাজমুল হোসেন সোহাগ, সাংবাদিক শরীফ সুমন, শাহ ওয়ালী উল্লাহ বাবু, মোঃ জসিম উদ্দিন, সুব্রত কুমার দেব, ডা. দেবরাজ মালাকার, আবুল হাসনাত রুবেল, কামাল হোসেন কালিম, মলয় সরকার, আবু শাহেদ মোঃ কিবরিয়া রাসেল, আব্দুল সালাম শাহীন, সোলায়মান খান, মোস্তাফিজুর রহমান শামীম, আশিকুর রহমান আশিক, খোরশেদ আহমেদ লিটন, নূর হোসেন গাজী রাসেল, আজিজুর রহমান চঞ্চল, এ এ মামুন, জামালউদ্দিন পলাশ, রঞ্জিত সাহা, মাহবুব হাসান দর্পন, রুহুল আমিন শুভ, রোকন উদ্দিন তালুকদার, আফজাল হোসেন, রাশেদ, আফজাল হোসেন রাজু, আব্দুল সাদিক আল আমিন মিনার, আলী ইমরান সুমন, আহমেদ হোসেন ফারুক, শাহাদাৎ হোসেন তান্না, রাসেল মাহমুদ নাঈম, কাজী আবু জাফর ইকবাল রুবেল, শরীফুল ইসলাম খান শাকিল, মনির হোসেন, রঘু নাথ সাহা, রন্টি, লিটন, মারুফ, মশিউর রহমান মামুন, পলাশ (মনা), আনাস ইসলাম রিতু ওরফে তুষার, সবুজ, ফারুক ওরফে জ্যাক ফারুক, ডা. কুমার তানসেন, সনজিত, সুমন কুমার, শ্যামল, খায়রুল কবির মুন্না, মিজানুর রহমান মুন্না, রবিউল ইসলাম, সিদ্দিক ওরফে লিটন, রিয়াজ, দীপঙ্কর।

এছাড়া হাজীগঞ্জের প্রকৌশলী জুয়েল, নবীগঞ্জের সায়েম সেন্টু, চাঁদমারীর ফারুক, শোভন গার্মেন্টের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা আবু হানিফ, মাসদাইরের এবিএম শাহিনুর রহমান সুমন, ডনচেম্বারের রাসেল, খানপুরের কামাল, তল্লার ফারুক গতবছর আসতে না পারলেও এবছর উপস্থিত হন। এছাড়া বন্ধু ওহিদুর রহমান ওহিদ, হারুন, রাহাত, রঞ্জনও এবছর উপস্থিত হন। আমন্ত্রিত বন্ধু হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ট্রাস্ট ব্যাংকের ম্যানেজার বন্ধু ইমন ও আরেক বন্ধু সুমন।

অনুষ্ঠানে আসতে না পারলেও সূদূঢ় ইটালী থেকে শোয়েব এবং ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে ডা. কাজী সুমন রেজিষ্ট্রেশন করেছিল। তারা যেমন আসতে না পারার আক্ষেপে পুড়েছে তেমনি তাদেরকেও মিস করেছে সকলে। গত বছর পূর্নমিলনীতে আসলেও এবছর রেজিষ্ট্রেশন করেও কর্মব্যস্ততার কারনে অ্যাডভোকেট তৌফিক হাসান আপেল, সওজে চাকুরীরত মাসুদ, নারায়ণগঞ্জ হাইস্কুলে চাকুরীরত সুনিল সাহানী আসতে পারেনি। গত বছর উপস্থিত থাকলেও আমেরিকায় থাকার কারণে উপস্থিত হতে পারেনি বন্ধু মাহবুব ইমাম অঞ্জন। একইভাবে সৈয়দ রাকিবুল হাসান রাকিবও উপস্থিত থাকতে পারেনি। গত বছর ও এবছর রেজিষ্ট্রেশন করেও থাকতে পারেনি বন্ধু সাংবাদিক এমএ খান মিঠু। গত বছরে আসেনি কিন্তু এবছর রেজিষ্ট্রেশন করেও আসতে পারেনি বন্ধু আশিকুজ্জামান জুয়েল ওরফে, মেহেবুব ও রানা। অকালে হারিয়ে যাওয়া খানপুরের ফয়সালকেও মিস করেছে সকলে।


নিউজ নারায়াণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:

Shirt Piece
সংগঠন সংবাদ -এর সর্বশেষ