ডাক্তাররা পাশে আছে আতংকিত হবেন না : নারায়ণগঞ্জবাসীকে সিভিল সার্জন

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৩৬ পিএম, ১৩ এপ্রিল ২০২০ সোমবার

ডাক্তাররা পাশে আছে আতংকিত হবেন না : নারায়ণগঞ্জবাসীকে সিভিল সার্জন

নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) ডা. চৌধুরী মোহাম্মদ ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেছেন, আপনারা নারায়ণগঞ্জবাসী আতংকিত হবেন না। করোনা আক্রান্ত হলেও যে মারা যাবেন এমনটি নয়, বিশ্বের পরিসংখ্যানে ও দেশের পরিসংখ্যানে এতে সুস্থ হবার সংখ্যা মৃত্যুর চেয়ে অনেক বেশি। আমাদের ডাক্তাররা আপনাদের পাশে আছেন।

সোমবার (১৩ এপ্রিল) বিকেলে নিউজ নারায়ণগঞ্জের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জবাসীকে এ বার্তা দেন তিনি।

জেলার সকল ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীকে এ সময়ের সাহসী বীরযোদ্ধা হিসেবে আখ্যায়িত করে যারা নিরসল কাজ করে যাচ্ছেন তাদেরকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

তিনি ডাক্তারদের, স্বাস্থ্যকর্মীদের সহযোগীতা চেয়েছেন এবং তাদের পাশে থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতার জন্য সকলকে আহবান জানিয়েছেন।

ইকবাল বাহার বলেন, আপনারা সকলে শুধু একটু সাবধানতা অবলম্বন করবেন এবং নিতান্ত জরুরি প্রয়োজন ব্যতিত ঘরেই থাকুন। আতংকিত হবেন না। এটি স্বাভাবিক রোগের মতই আক্রান্ত হলে অনেকে দেখা যাচ্ছে আতংকে বেশি ঘাবড়ে যাচ্ছেন। এতে করে স্ট্রোক কিংবা দুশ্চিন্তায় আপনাদের শারীরিক অন্য সমস্যা দেখা দিতে পারে। আমাদের ডাক্তাররা আপনাদের পাশে আছেন তারা সেবায় প্রস্তুত রয়েছেন। আপনারা শুধু আমাদের নির্দেশনাগুলো মেনে চলুন আপনাদের সেবায় আমরা সর্বোচ্চ ত্যাগ করবো।

জেলাবাসীর ও সকল প্রতিষ্ঠানকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন আপনারা ডাক্তারদের সহযোগিতা করবেন ও সাহস দেবেন। তাদেরকে উৎসাহ যোগাবেন যেন তারা দিগুন উৎসাহ নিয়ে আপনাদের পাশে থাকে। তাদেরকে কোনভাবেই বিব্রত করা কিংবা আতংকিত করার চেষ্টা করবেন না। তারা দেশ ও জাতির জন্য সব সময় প্রস্তুত ছিলেন এবং এখনো আছেন। আমরা সবাই মিলে তাদের পাশে থাকবো।

প্রসঙ্গত সবশেষ পাওয়া তথ্যমতে শহরে প্রায় ৪২টি বেসরকারি স্বাস্থ্য সেবা (হাসপাতাল ক্লিনিক ও ডায়গনস্টিক সেন্টার) প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ১০টির বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মীরা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় সম্প্রতি সেগুলো বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

সর্বশেষ পাওয়া তথ্যমতে, সম্প্রতি জেলা সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইমতিয়াজ, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম, সদর জেনারেল হাসপাতালের একজন ডাক্তার, একজন নার্স, একজন ওয়ার্ড বয়, একজন অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার, খানপুর ৩শ শয্যা হাসপাতালের একজন মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক, হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের পিএ সিদ্দিক, হাসপাতালের আরো ১০ থেকে ১৫ জন হোম কোয়ারেন্টিনে, শহরের পলি ক্লিনিকের মালিক ও বিএমএ নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি ডা. শাহনেয়াজ সহ শহরের অনেকগুলো ক্লিনিক হাসপাতালের চিকিৎসক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। তারা এখন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ অবস্থায় কিছুটা স্থবিরতা চলে এসেছে জেলার স্বাস্থ্য সেবা প্রদানে।

শহরের মেডিপ্লাস ডায়গনস্টিক সেন্টারের বসাক নামে একজন ডাক্তার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার কুয়েত মৈত্রীতে চিকিৎসা নিচ্ছেন, পলি ক্লিনিকের ওটি বয় অকিল করোনা পজিটিভ হয়ে কুয়েত মৈত্রীতে চিকিৎসা নিচ্ছেন, এ ক্লিনিকের আরো ৪ জন কর্মীর স্যাম্পল কালেক্ট করা হয়েছে করোনা টেস্টের জন্য, শহরের ডিআইটি এলাকার আরেকটি বেসরকারি হাসপাতালের একজন করোনা পজিটিভ হয়ে ঢাকার কুর্মিটোলায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন, শাহীন জেনারেল হাসপাতালের ম্যানেজার সোহাগ ইতোমধ্যেই আইসোলেশনে রয়েছেন, একতা ডায়গনস্টিক সেন্টারের সকল কর্মী হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন।

বাংলাদেশ প্রাইভেট হসপিটাল ও ক্লিনিক, ডাউগনস্টিক মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক ও নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক শাহীন মজুমদার নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, আমাদের এখানে ৪২টির মত প্রতিষ্ঠান রয়েছে যার মধ্যে প্রায় ১০টি ইতোমধ্যে লকডাউন হয়ে গেছে। এদের কর্মীরা কয়েকজন করোনায় আক্রান্ত আবার কয়েকজন কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। আমরা তো খোলা রাখতে চাচ্ছি কিন্তু কর্মীরা যদি আক্রান্ত হয়ে পড়ে এভাবে তাহলে তো আমাদের পক্ষেও কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ছে।

তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, করোনা আক্রান্ত বা যারা করোনার উপসর্গ নিয়ে আসেন তাদেরকে যদি আমরা টেস্ট করতে না পারি কিংবা তাদেরকে যদি আইডেন্টিফাই করতে না পারি সে ক্ষেত্রে তাদের সংস্পর্শে এসে কর্মীরা শঙ্কায় পড়ছেন। যদিও আমাদের কর্মীরা গ্লাভস, মাস্ক এসব ব্যবহার করছেন। করোনার রোগীদের যেখানে রাখা হবে বা যে পথে তাদের চিকিৎসা সেবা দেয়া হবে সেপথে অন্য সাধারণ রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেয়া হলে তারাও করোনা আক্রান্তের হুমকির মুখে পড়বেন। এ অবস্থা থেকে দ্রুত উত্তরণ করে আমরা দ্রুত সবগুলো ক্লিনিক হাসপাতাল ও ডায়গনস্টিক সেন্টার খুলতে চেষ্টা করবো, এজন্য সংশ্লিষ্টদের সহায়তা অব্যাহত রাখতে হবে।


বিভাগ : সাক্ষাৎকার


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও

আরো খবর