আজমেরী ওসমানের পরিচয়ে চাঁদাবাজী : মোখলেস ও রুপুর জামিন


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৬:৩৬ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার
আজমেরী ওসমানের পরিচয়ে চাঁদাবাজী : মোখলেস ও রুপুর জামিন

বাচ্চু মিয়া নামের ব্যবসায়ীর কাছে চাঁদা দাবী ও না পেয়ে মারধর, হুমকি প্রদানের অভিযোগে গ্রেফতার নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্র সমাজের সভাপতি সহ দুইজনের জামিন মঞ্জুর করেছে আদালত। ১৫ সেপ্টেম্বর রোববার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আনিসুর রহমান তাদের জামিন মঞ্জুর করেন।

জামিনপ্রাপ্তরা হলেন সোনারগাঁও উপজেলার নাজির পুর এলাকার গোলজার হোসেনের ছেলে মোকলেছুর রহমান (৩৫) ও ফতুল্লা ইসদাইর এলাকার মো. ফকির চাঁনের ছেলে জেলা ছাত্র সমাজের সভাপতি শাহাদৎ হোসেন রুপু এবং পলাতক জুয়েল (৩০)। আসামী পক্ষের আইনজীবী হিসেবে ছিলেন অ্যাডভোকেট সুইটি ইয়াসমিন।

এর আগে গত ৫ সেপ্টেম্বর রাত সোয়া ১২টা থেকে আল্লামা ইকবাল সড়কের (কলেজ রোড হিসেবে পরিচিত) দেওয়ান মঞ্জিলের নিচ তলার অফিসে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়েছিল। গত ৬ সেপ্টেম্বর সকালে শহরের আমলাপাড়া এলাকার মৃত হাজী আহসান উল্লাহর ছেলে মো. বাচ্চু মিয়া নামে বাদি হয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় ওই মামলা দায়ের করেন।

বাদী বাচ্চু মিয়া মামলায় উল্লেখ করেন, ৫ সেপ্টেম্বর রাত ৮টায় ০১৭৩৯০৮৯৪৯২ থেকে আমরা মোবাইল নাম্বারে ফোন করে বলে, ‘চাচা আমাকে চিনতে পারছেন। আমি আজমেরী ওসমান বলছি। আমার একটা লোক আপনার কাছে যাবে তাকে আপনি ৬৫ হাজার টাকা চাঁদা দিয়ে দিবেন। এবং তাকে আদর্শ মিষ্টান্ন ভান্ডার থেকে মিষ্টি খাওয়াইয়া টাকা দিয়ে দিবেন।

কিছুক্ষণ পর মোকলেছ নামে একজন লোক আমার সঙ্গে কালি মন্দিরের সামনে দেখা করে। আমি তাকে মিষ্টি খাওয়ানোর জন্য কালির মন্দিরের পাশে আদর্শ মিষ্টির দোকানে মিষ্টি খায়ানের জন্য ডাকলে সে মিষ্টি খাবে না বলে পরবর্তীতে গ্রামীন হোটেলে নিয়ে হালিম খাওয়ানোর জন্য বললেও হালিম খাবে না বলে দোকান থেকে বের হয়ে যায়। আমি দোকান থেকে বের হলে মোকলেস আমাকে বলে আপনাকে হাজী সাহেব ডাকছে। এ কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে মোকলেস সহ আরো অজ্ঞাত ৭ থেকে ৮ জন আমার প্যান্টের কোমরের বেল্ট ধরে টানতে টানতে কালির বাজার মাংস পট্টি আফসু মহাজনের হোটেলের সামনে নিয়ে এলোপাথাড়ী ভাবে মারধর করে মাথা, কপাল সহ শরীরে বিভিন্ন জায়গায় নীলা ফুলা জখম করে।

তিনি আরো উল্লেখ করেন দাবিকৃত ৬৫ হাজার টাকা না পেয়ে আজমেরী ওসমানের নির্দেশে সকল আসামিরা আমাকে নারায়ণগঞ্জে বসবাস করতে দিবে না বলে ভয়ভীতি ও প্রাণ নাশের হুমকি দেয়।

তবে ইতোমধ্যে বাচ্চু মিয়া পুলিশের কাছে মামলা প্রত্যাহার করে নিতে আবেদন করেছেন। এতে তিনি বলেছেন, মামলার ঘটনাটি ছিল নিছক ভুল বোঝাবুঝি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর