নারায়ণগঞ্জে ২ খুন ৫ লাশ


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:৪৩ পিএম, ২৯ মে ২০২০, শুক্রবার
নারায়ণগঞ্জে ২ খুন ৫ লাশ

করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও নারায়ণগঞ্জে খুন সহ লাশ উদ্ধারের ঘটনা ঘটছে। এছাড়া নানা ঘটনায় মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। এতে করে স্বজনদের আহাজারিতে পরিবেশ ক্রমশ ভারী হয়ে উঠছে।

২১ মে থেকে ২৮ মে পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া হত্যাকান্ড ও লাশ উদ্ধারের ঘটনার সচিত্র তুলে ধরা হল। এ সপ্তাহে ২টি হত্যাকান্ড, একটি লাশ উদ্ধার সহ বিভিন্ন ঘটনায় আরো ৪ জন মারা গেছে।

২৭ মে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে একজন মারা গেছেন। উপজেলার কালাপাহাড়িয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম আইয়ুব। এ ঘটনায় ইতোমধ্যে ১২ জন আহত হয়েছেন। এসময় ঘরবাড়ি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনাও ঘটেছে। নিহত আইয়ুবের বয়স ১৫। সে স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র ও জালালউদ্দিনের ছেলে।

জানা যায়, উপজেলার কালাপাহাড়িয়ায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সাবেক মেম্বার হক সাহেব ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম গ্রুপের মধ্যে দুপুরের পরেই সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে দুপক্ষের লোকজন দেশিয় অস্ত্র ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এসময় উভয় পক্ষের মধ্যে পড়ে আইয়ুব মারা যায়।

২৪ মে ফতুল্লাা মুসলিমনগর এলাকায় ছুরিকাঘাতে মো. ফেরদৌস (৩০) নামে যুবক খুন হয়েছে। পুলিশ অভিযুক্ত যুবককে আটক করেছে। পুলিশের দাবি, ‘পূর্বশত্রুতার জের ধরে এক বন্ধুকে আরেক বন্ধু হত্যা করেছে।’ নিহত ফেরদৌস পটুয়াখালী শুভডুগী এলাকার আব্দুল মিয়ার ছেলে। আর আটক যুবক হলো, শরিয়তপুর পোপনচর এলাকার সোবহান মিয়ার ছেলে রাকিব মিয়া (৩০)।

প্রত্যক্ষদর্শী সুমন মিয়া জানান, ‘নিহত ফেরদৌস, অভিযুক্ত রাকিব ও সুমন মুসলিমনগরের লোকমান হোসেনের বাড়ির ভাড়াটিয়া। সুমন মিয়া রোববার রাত ১টায় বাসায় ফিরেন। ওইসময় বাড়ির গোসল খানার মধ্যে চিৎকার শুনতে পান। পরে সেখানেগিয়ে রাকিবকে রক্তমাখা ছুরি হাতে ও রক্তাক্ত অবস্থায় ফেরদৌস মাটিতে পড়ে আছে। এসব দেখে তিনি চিৎকার শুরু করলে রাকিব পালিয়ে যায়। পরে তারা পুলিশকে খবর দেন।

২৭ মে সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন রসূলবাগ এলাকায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুইজন শিশু সহ এক নারী মারা গেছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো দুইজন। নিহতরা হলো রসূলবাগ এলাকার আলমগীর মুন্সির স্ত্রী মোসা. রুবিনা আক্তার (২৫) ও মেয়ে সুমাইয়া আক্তার (১০) এবং একই বাড়ির রবিউল ইসলামের ছেলে মো. হাসান শেখ (৩)।

ঘটনাস্থলে যাওয়া সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবু হানিফ বলেন, রসূলবাগ এলাকায় জাহাঙ্গীর মিয়ার বাড়ির দুটি টিনের ঘরে পরিবার নিয়ে আলমগীর মুন্সি ও রবিউল ইসলাম বসবাস করে। সকাল ৭টায় ঝড়ো বৃষ্টির সময় বজ্রপাতে ট্রান্সফরমার থেকে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে পাশের একটি টিনের ঘরের উপর পরে। এসময় ঘর থেকে বের হতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ৫জন গুরুতর আহত হয়। এতে ঘটনাস্থলে রুবিনা ও হাসান দুইজন মারা যায়। আর বাকি তিনজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল খান বলেন, ‘সুমাইয়া আক্তারকে হাসপাতালে নিয়ে আসলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করে। পরে স্বজনরা লাশ নিয়ে চলে যায়।’

২৫ মে আড়াইহাজারে মোহতাসিম মতি (৪৫) নামে এক মাজার খাদেমের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। উপজেলার বালিয়াপাড়া কদমদীতে অবস্থিত মাজারের পাশেই একটি টিনের ঘরের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ। মৃত মতি ব্রাহ্মণদী ইউনিয়নের লস্করদী গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে।

২৫ মে আড়াইহাজারে সেফটিক ট্যাংকি বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ ৪ জনের একজন চা দোকানি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। নিহত চায়ের দোকানদার হরমুজ আলী আড়াইহাজারের মনপুরা এলাকার আব্দুস সাত্তারের ছেলে।

এ ঘটনায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এখনো চিকিৎসাধীন রয়েছেন উপজেলার শিবপুরের জয়নাব আলীর ছেলে মনসুর (৫০), কান্দাপাড়া এলাকার রমিজউদ্দিনের ছেলে আলম (৫২), রমজানের ছেলে ইব্রাহীম ২৬।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর