বঙ্গবন্ধুর সহযোগি চাঁন মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকীতে সায়েমের স্ট্যাটাস


স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ১১:১১ পিএম, ২৯ এপ্রিল ২০২০, বুধবার
বঙ্গবন্ধুর সহযোগি চাঁন মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকীতে সায়েমের স্ট্যাটাস

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিশ্বস্ত ও একনিষ্ঠ সহযোগী চাঁন মিয়া প্রধানের ২৭ তম মৃত্যুবার্ষিকী বুধবার। তিনি আরবী রমজান মাসের ৫ তারিখে মৃত্যুবরণ করেছিলেন। চাঁন মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকীতে নাতি সায়েম প্রধান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তাঁর রাজনৈতিক জীবনের নানা বিষয় নিয়ে স্মৃতিচারণ করে একটি আবেগঘন স্যাটাস দিয়েছেন।

ওই স্যাটাসে সায়েম প্রধান উল্লেখ করেন, আজ আমার দাদাজান চান মিয়া প্রধানের এর ২৭ তম মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি ১৯৫৪ ইং সালে নির্বাচন কালীন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি (বর্তমান সিদ্ধিরগঞ্জ থানা এলাকা) ছিলেন। দাদাজানের মৃত্যুর পর তৎকালীন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা জিল্লুর রহমান, আমির হোসেন আমু এবং আব্দুল জলিল আমাদের বাসায় টেলিফোনে শোক প্রকাশ করে পরিবারকে সান্তনা দিয়েছিলেন। তখন নারায়ণগঞ্জ জেলা ও শহর আওয়ামীলীগ এর শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ আমাদের বাস ভবনে ছুটে আসেন এবং জাতীয় পত্রিকা বাংলার বানীতে আওয়ামীগীগ নেতৃবৃন্দের শোক প্রকাশ পায়। আমার দাদাজান আমৃত্যু আওয়ামী লীগের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন।

তিনি আরও উল্লেখ করেন, সিদ্ধিরগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মরহুম চান মিয়া প্রধান বৃটিশ ভারতের শ্রমিক রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। তিনি তদানিন্তন শ্রমিক ফেডারেশনের সক্রিয় কর্মী হিসেবে ইংরেজদের বহু জুলুম নির্যাতন এর স্বীকার হন। এজন্য তিনি কয়েকবার চাকরিচ্যুতও হন। আমার দাদাজান জীবিত থাকা অবস্থায় তার মুখে ১৯৬৬ এর ছয় দফা আন্দোলন, ১৯৬৯ এর গন অভ্যুত্থান এবং ১৯৭০ এর নির্বাচনে তার সক্রিয় অংশগ্রহণের ইতিহাস শুনে আমরা অনুপ্রানিত হতাম। তিনি বঙ্গবন্ধুর কাছে অনেক বিশ্বস্ত ও একনিষ্ঠ সহোযোগী ছিলেন। ১৯৭১ সালের ৭মার্চে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সারা দিয়ে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে আমার দাদাজানের আদেশে তার দুই পুত্র আমার চাচা হাসান আলী প্রধান এবং আমার পিতা মোহসীন আলী প্রধান মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করেন। এলাকার মসজিদ মাদ্রাসা, কবরস্থান সহ বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানে তার বিরাট অবদান রয়েছে। সিদ্ধিরগঞ্জের কাইজুদ্দীন সাহেব, সোনামিয়া সাহেব এবং আমিজউদ্দিন সাহেবের ভগ্নিপতি ছিলেন তিনি।

সায়েম লিখেন, বর্তমান নব্য আওয়ামী লীগের অনেকেই জানেনা ওই সময় নারায়ণগঞ্জে আওয়ামিলীগ প্রতিষ্ঠা করার জন্য এই চানমিয়া প্রধান ও তার পরিবারের কতটা অবদান ছিল। বর্তমানে নারায়ণগঞ্জে নব্য আওয়ামী লীগের ভীড়ে ত্যাগী আওয়ামী লীগের পরিবারগুলো আজ অবহেলিত।

সবশেষ তিনি বলেন, আমার দাদাজানের জন্য সবাই দোয়া করবেন আল্লাহপাক যেনো তাকে জান্নাত নসীব করেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর