করোনাকালে সদর বন্দরে জনগণের পাশে

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪৮ পিএম, ১৮ মে ২০২০ সোমবার

করোনাকালে সদর বন্দরে জনগণের পাশে

গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর-বন্দর) আসনে বিএনপির মনোনয়ন চেয়েছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আবুল কালাম ও সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার। কিন্তু চূড়ান্ত সময়ে তাদেরকে আর মনোনয়ন দেয়া হয়নি। নির্বাচন পরবর্তী ও পূর্ববর্তী সময়ে তারা বিভিন্ন সভা সমাবেশে জনগণের পাশে থাকার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে আসছেন। সেই অনুযায়ী তারা এই প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস চলাকালিন সময়েও জনগণের পাশে থাকার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

জানা যায়, প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় শুরু থেকে কাজ করে যাচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আবুল কালাম। তিনি নিজে মাঠে না থাকলেও তার নেতাকর্মী সমর্থকদের দিয়ে প্রায় প্রতিদিনই এলাকাবাসীর মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করে চলছেন। আবুল কালামের ছেলে নারায়ণগঞ্জ মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আবুল কাউসার আশা এলাকাবাসীর মধ্যে খাদ্য বিতরণে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। একই সাথে দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদেরও সহযোগিতা করে যাচ্ছেন তিনি। কারও কোনো সহযোগিতার প্রয়োজন হলেই তিনি ছুটে যাচ্ছেন।

বর্তমানে এলাকার জনপ্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন না করলেও জনসাধারণের কল্যাণে অ্যাডভোকেট আবুল কালামের প্রচেষ্টার কোনো কমতি রাখছেন না। তিনি তার সাধ্যনুযায়ী প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৩ নং কাউন্সিলর ও মহাগর যুবদলের সভাপতি মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। মানুষকে সচেতন করা থেকে শুরু করে যাবতীয় কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন তিনি। দল মত ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকলের জন্যই একজন নিবেদিত মানুষ হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধির পরেই প্রথমবারের মত হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করে গণমাধ্যমে আলোচনায় চলে আসেন খোরশেদ। ক্যামিস্ট বন্ধুদের সহযোগিতায় উপকরণ ক্রয় করে ৩০ হাজার হ্যান্ড স্যানিটাইজার যখন তৈরির উদ্যোগ নেন তখন নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এসে তাঁর কাছ থেকে কৌশল রপ্ত করতে ভীড় করেন। নিজ কার্যালয়ে বিতরণের পর ওয়ার্ডের সবগুলো এলাকাতে নিজ উদ্যোগে বাড়ি বাড়ি হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ শুরু হয়।

এরই মধ্যে খোরশেদ ঘোষণা দেন নারায়ণগঞ্জে করোনা উপসর্গ কিংবা এ রোগে কেউ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করলে দাফনের ব্যবস্থা করবেন। এরপর থেকেই তিনি একের পর এক লাশের কাফন দাফন সম্পন্ন করে চলছেন। নিজ ধর্মালম্বীদের পাশাপাশি অন্য ধর্মালম্বীদেরও লাশের সৎকার করে যাচ্ছেন মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। যা নিয়ে দেশের পাশাপাশি বর্হিবিশে^ও আলোচনায় চলে এসেছে। তাকে নানা উপাধিতে ভূষিত করে যাচ্ছেন। কেউ বলছেন, ‘মানবতার ফেরিওয়ালা’ কেউ বলছেন ‘হিরো অব করোনা’।

মাকসুদল আলম খন্দকার খোরশেদকে নিয়ে স্ট্যাটাস দিয়েছেন ডাচ রাজনীতিবিদ জোরাম জারন ভ্যান ক্লাভেরেন। তিনি ফ্রিডম পার্টির সদস্য হিসাবে তিনি ২০১০ সালের ১ জুন থেকে ২০১৪ সালের ২১ মার্চ অবধি নেদারল্যান্ডের একজন সংসদ সদস্য ছিলেন।

অন্যদিকে গত ২১ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ ৫ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদকে তার মানবিক কাজের জন্য ‘‘বীর বাহাদুর’’ উপাধি আখ্যা দিয়ে বক্তব্য রাখেন।

সেলিম ওসমান বলেন, ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে মৃতদের দাহ এবং দাফনের ব্যবস্থা করছেন। এক আরো সুন্দর ও জোরদার করার জন্য তাঁকে বীর বাহাদুর আখ্যায়িত করে সিটি কর্পোরেশন অঞ্চলের মানুষের নিরাপত্তা ও সেবা প্রদানের জন্য আমার দোয়া রইল।

একই সাথে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের কর্মকান্ড প্রসঙ্গে মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী একটি প্রভাবশালীকে গণমাধ্যমকে বলেন, ‘খোরশেদ খুব ভালো কাজ করছে। আমি তার তারিফ করি। আমি আশা করি ভবিষ্যতেও সে এ ধরনের কাজ করবে। আমরা সিটি করপোরেশন থেকে তাকে সহযোগিতা করছি। সে যখন যা চাচ্ছে, তাকে সাপোর্ট দিতে চেষ্টা করছি।’


বিভাগ : রাজনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও